করোনা সন্দেহে রাস্তায় পড়ে থাকা বৃদ্ধকে বুকে টেনে নিল যুবক

করো’না সন্দে'হে কেউ কাছে না যাওয়ায় ২৪ ঘণ্টা রাস্তার পাশে পড়ে ছিলেন সত্তরোর্ধ্ব অসুস্থ এক রিকশাচালক। পানি খাওয়ার শক্তিও তার ছিল না। অসুস্থ শরীরে কাতরাচ্ছিলেন। রাস্তার পাশেই রাখা ছিল তার রিকশাটি। পথ চলতি কেউ সাহায্য না করলেও এক তরুণ বুকে টেনে নিয়ে সেবা করলেন তার। ভর্তি করালেন হাসপাতালে।

অসুস্থ ওই বৃ'দ্ধ কার্যত মৃ'ত্যু মুখে ঢলে পড়ছিলেন। আশপাশের প্রতিবেশীদের অনুমান ছিল, ওই রিকশাচালক করো’না আ'ক্রা'ন্ত হয়েছেন। তাই কেউ তার কাছে যেতে রাজি হননি। দীর্ঘক্ষণ রাস্তায় এভাবে পড়ে থাকার পর অবশেষে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তরুণ সুমন মজুম'দার। সেবা দিয়ে তাকে বুকে তুলে নেন তিনি।

সুমন মজুম'দার ভারতীয় সেনাবাহিনীর কলকাতা সদর দফতরে কেরানির পদে কর্মর'ত। গ'র্ভবতী স্ত্রীকে নিয়ে অটোগাড়িতে করে ডাক্তারের কাছে যাওয়ার পথে বৃ'দ্ধ রিকশাচালককে দেখতে পান। রাস্তার পাশে বৃ'দ্ধকে এভাবে দেখে স্ত্রীকে অটোতে বসিয়ে রেখে রিকশাচালককে সাহায্য করতে এগিয়ে যান তিনি।

সুমন যখন কাছে যাচ্ছিলেন তখন দেখেন রাস্তায় পড়ে পানি খাওয়ার জন্য কাতরাচ্ছেন অসুস্থ বৃ'দ্ধ। করো’না সন্দে'হে পথ চলতি মানুষ সাহায্য না করলেও সুমন অসুস্থ স্ত্রীকে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে নিজের কোলে তুলে নিয়ে অসুস্থ রিকশাচালককে পানি খাইয়ে কিছুটা সুস্থ করে তোলেন। পরে তাকে নেওয়া হয় হাসপাতালে।

স্থানীয় পুলিশের সহযোগিতায় অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর উত্তর বারাকপুরের একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় বৃ'দ্ধকে। আর এই পুরো সময়টা জুড়ে রিকশাচালক বৃ'দ্ধকে নিজের কোলে করে রেখেছিলেন সুমন। তার এমন মহৎ উদ্যোগ ও পরার্থপরতায় সাধুবাদ জানাচ্ছেন অনেকেই।

সুমন বলেন, ‘এভাবে মৃ'ত্যুপথযাত্রী অসুস্থ ব্যাক্তিকে রাস্তায় ফেলে চলে যাওয়াটা অন্যায়। স্ত্রী অসুস্থ হলেও বৃ'দ্ধকে আগে হাসপাতাল পাঠানোর দরকার ছিল। করো’নার ভয়ে কে সাহায্য করলো আর কে সাহায্য করলো না, তা ভেবে লাভ কি? আমি যতটা পারলাম চেষ্টা করেছি। আশা করছি উনি সুস্থ হয়ে উঠবেন’।

Facebook Comments

Related Articles

Back to top button