পরীক্ষা ছাড়াই পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হবে শিক্ষার্থীরা?

করো’নার মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব না হলে শেষ পর্যন্ত পরীক্ষা ছাড়াই পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ হবে শিক্ষার্থীরা। এক্ষেত্রে সীমিত আকারে হলেও চলতি শিক্ষাবর্ষের মৌলিক বি'ষয় অন্তর্ভুক্ত করা হবে পরের শিক্ষাবর্ষে। এ বি'ষয়ে নিজেদের সুপারিশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিট-বেডু। মন্ত্রণালয় বলছে, আগামী মাসে এ বি'ষয়ে চূড়ান্ত সি'দ্ধান্ত নেয়া হবে।

১৭ মা'র্চ থেকে বন্ধ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। নেয়া সম্ভব হচ্ছে না এইচএসসি পরীক্ষাও। অফিস আ'দালত খুলে দেয়া হলেও এখনো অনিশ্চিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বি'ষয়টি।

এ অবস্থায় সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সি'দ্ধান্তে বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিট-বেডু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ৩৯ পৃষ্ঠার একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। যেখানে গু'রুত্বপূর্ণ সুপরিশগু'লোর মধ্যে রয়েছে।

এক, সেপ্টেম্বরে স্কুল খুললে সীমিত আকারে হবে প্রতি বি'ষয়ে ১০০ নম্বরের পরীক্ষা।

দুই, নভেম্বরে স্কুল খুললে নেয়া হবে প্রতি বি'ষয়ে এমসিকিউ প'দ্ধতিতে ৫০ নম্বরের পরীক্ষা।

তিন, ডিসেম্বরেও স্কুল খোলা না হলে কোন পরীক্ষা ছাড়াই পরবর্তী শ্রেণীতে চলে যাব'েন শিক্ষার্থীরা। তবে আগের বছরের মৌলিক পাঠ্যক্রম অন্তুর্ভুক্ত হবে পরের বছর।

বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিটের উর্ধ্বতন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক রবিউল কবীর চৌধুরী বলেন, ‘আমর'া বলেছি যে পরবর্তী ক্লাসে শিফট করে দেয়া। যদি প্রমোশন দেয়া হয় কোনো পরীক্ষা ছাড়া আগের ক্লাসের কিছু অধ্যায় পরবর্তী ক্লাসে পড়ানো হবে।’

মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, শিক্ষাবর্ষ প্রায় শেষের দিকে। এ অবস্থায় খুব দ্রুত নিতে হবে সি'দ্ধান্ত। সুপারিশগু'লোকে শেষ মুহুর্তের যাচাই বাছাই করে শিগগিরই সি'দ্ধান্ত জানাবে সরকার।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহবুব হোসেন বলেন, ‘কোন সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললে কি হবে তার একটা ড্রাফট আমা'দের দিয়েছে। সেই মতামতগু'লোকে আমর'া গু'রুত্বের স'ঙ্গে দেখছি।’

জেএসসি এবং জেডিসি পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেও নিয়ম প্রযোজ্য হবে। আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললেও এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতিতে কমপক্ষে ১ মাস সময় নেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

Facebook Comments

Related Articles

Back to top button